এটি মেক্সিকোতে এক মাদক ব্যবসায়ীর বাড়িতে পুলিশি অভিযানের দৃশ্য

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে একটি ভিডিও কয়েক লাখ বার ভিউ হয়েছে। দাবি করা হচ্ছে ভিডিওটিতে রুশ সেনা কর্তৃক ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের বাসভবনে অভিযানের দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। দাবিটি অসত্য। মূলত এই ভিডিও ক্লিপটি ২০১৬ সাল থেকে অনলাইনে রয়েছে এবং সংবাদমাধ্যমের খবরে 'এল চাপো' খ্যাত মেক্সিকান মাদক ব্যবসায়ী জোয়াকিন গুজম্যানের বাড়িতে পুলিশি অভিযানের ফুটেজ বলে জানানো হয়েছে। ১৫ মার্চ ২০২২ তারিখে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রাশিয়ান বাহিনী ইউক্রেনের রাজধানীতে অবস্থিত প্রেসিডেন্ট ভবনের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি।

২ মিনিট ৪৩ সেকেন্ডের ভিডিওটি গত ৬ মার্চ ২০২২ তারিখে ফেসবুকে এখানে শেয়ার করা হয়।

ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ইউনিফর্ম পরা কয়েকজন সশস্ত্র ব্যক্তি একটি ঘরের দরজা ভেঙে প্রবেশ করছেন।

বাংলা ভাষায় ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা হয়েছে: "ইউক্রেন প্রেসিডেন্টের বাসায় রাশিয়ান মিলিটারিদের হামলার ভিডিও প্রকাশ!"

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর ইউরোপে শরণার্থী সংকট দেখা দিয়েছে। ২৫ লাখের বেশি মানুষ ইউক্রেন ত্যাগ করেছেন এবং সহস্রাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন।

১৫ মার্চ পর্যন্ত ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের উপকণ্ঠে রুশ বাহিনীর সাথে ইউক্রেনিয়ানদের ব্যাপক লড়াই চলার খবর পাওয়া জানিয়েছে এএফপি

শুধুমাত্র দক্ষিণ দিকে রাস্তাগুলো খোলা রয়েছে এবং কিয়েভবাসী "শক্ত প্রতিরোধের" প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় জানিয়েছেন।

ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি কিয়েভে অবস্থানের ঘোষণা দিয়েছেন। ১৪ মার্চ পর্যন্ত তিনি রাজধানীতে তার কার্যালয় থেকে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানিয়ে সামাজিক মাধ্যমে ভিডিও প্রকাশ করেছেন।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি ক্লিপটি একই রকম দাবি সহকারে ফেসবুকে এখানে, এখানে এখানে পোস্ট করা হয়েছে এবং সেটি অন্তত ৭ লাখ বার দেখা হয়েছে।

কিন্তু দাবিটি অসত্য।

মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

ফুটেজটি ২০১৬ সাল থেকে সংবাদ প্রতিবেদনের সাথে প্রকাশিত হয়েছে এবং এসব খবরে বলা হয়েছে মেক্সিকান মাদক ব্যবসায়ী জোয়াকিন "এল চাপো" গুজম্যানের বাড়িকে পুলিশের অভিযানের দৃশ্য এটি।

গুজম্যান মেক্সিকোর সবচেয়ে প্রভাবশালী মাদক ব্যবসায়ীদের একজন এবং তার নিজস্ব মাকদ কার্টেল 'সিনালোয়া' বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছিল।

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ভিডিও ক্লিপটি মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের ইউটিউব চ্যানেলে পাওয়া গেছে যা ২০১৬ সালের ১৩ জানুয়ারি আপলোড করা হয়।

ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা হয়েছে: "এল চাপো গুজম্যান এর ভিডিও প্রকাশিত"

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রকাশিত ভিডিওর বর্ণনায় বলা হয়েছে, ফুটেজটি ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারি অভিযানকারীদের শরীরে যুক্ত ক্যামেরায় তোলা হয়েছে। এবং এটি মেক্সিকো সরকারের সরবরাহকৃত ভিডিও বলেও জানানো হয়েছে।

তবে ভাইরাল হওয়া ফেসবুক পোস্টে ভিডিওটি উল্টো করে ব্যবহার করা হয়েছে।

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টে ব্যবহৃত ভিডিও (বামে) এবং ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রকাশিত ভিডিওর (ডানে) তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেয়া হল:


অভিযানে গুজম্যানকে আটক করে আবার কারাগারে পাঠানো হয়। এর ছয় মাস আগে তিনি কারাগার থেকে পলায়ন করেছিলেন বলে এএফপির প্রতিবেদনে জানা গেছে।

এছাড়া ব্রিটেন ভিত্তিক সংবাদমাধ্যশ দ্য টেলিগ্রাফ এবং যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক টিভি চ্যানেল এবিসি নিউজ এর প্রতিবেদনেও একই রকম ফুটেজ প্রকাশিত হয়েছিল।

ইউক্রেন সংঘাত ইস্যুতে এএফপি নিয়মিত ভুয়া তথ্য খণ্ডন করছে। দেখুন এখানে

ইউক্রেন সংঘাত