১০৯ বছর বয়সে মারা যাওয়া থাই বৌদ্ধ ভিক্ষুর ছবিকে বিভ্রান্তিকর দাবি সহকারে প্রচার

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে এক বয়স্ক ব্যক্তির ছবি পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে ব্যক্তিটি বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক নারী যার বয়স ৩৯৯ বছর। দাবিটি অসত্য। প্রকৃতপক্ষে ছবিতে দেখা যাওয়া ব্যক্তি নারী নন, তিনি একজন পুরুষ। থাইল্যান্ডের নাগরিক ওই পুরুষ একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু যিনি ২০২২ সালের মার্চ মাসে ১০৯ বছর বয়সে মারা যান বলে তার নাতনি এএফপিকে জানিয়েছেন। গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড অনুযায়ী, বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে ১২২ বছর বয়সী এক ফরাসী নারী ১৯৯৭ সালে মারা যান।

গত ২৭ মার্চ ২০২২ তারিখে ফেসবুকে এখানে বৃদ্ধার ছবি সম্বলিত একটি স্ক্রিনশট পোস্ট করা হয়।

স্ক্রিনশটে ছবির পাশে শিরোনামে বাংলায় লেখা হয়েছে: "বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক নারীর বয়স ৩৯৯ বছর! ছবি ভাইরাল।"

একই দাবি ফেসবুকে এখানে এখানে পোস্ট করা হয়েছে।

কিন্তু দাবিটি অসত্য।

কীওয়ার্ড সার্চ করে টিকটকে এখানে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২ তারিখে পোস্ট করা একটি ভিডিও পাওয়া গেছে। এই ভিডিওর একটি ফ্রেমের সাথে ফেসবুকে পোস্ট করা স্ক্রিনশটে ব্যবহৃত বয়স্ক ব্যক্তিটির ৩টি ছবির মধ্যে প্রথমটি মিলে যায়।

@auy.saranya

เมื่อเหลนน้อยมาเรียกหา หลวงตาสัมผัสได้ถึงความรักและห่วงใย  เรียกมาเคาะหัวให้พรเหลนเลย สาธุๆๆ

♬ บทเพลงสวดบารมี 30 ทัศ - ocean media

@auy.saranya নামক টিকটক আইডিতে পোস্ট করা ভিডিওর ক্যাপশনে থাই ভাষায় লেখা হয়েছে: "যখন তার নাতির মেয়ে তার কাছে গেল তখন ভিক্ষু ভালোবাসায় আপ্লুত হলেন এবং তাকে আশীর্বাদ করলেন।"

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্ট ও টিকটক ভিডিওর ফুটেজের তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেয়া হল:

 

@auy.saranya নামক আইডিটিতে ওই বৃদ্ধের আরও বিভিন্ন সময়ের ভিডিও রয়েছে।

সারানিয়া খিউইলাই একজন থাই নারী যিনি এই টিকটক একাউন্টটি পরিচালনা করেন। তিনি এএফপিকে জানান, ভিডিওতে যে বয়স্ক ব্যক্তি এক কিশোরীকে আশীর্বাদ করছেন তিনি সম্পর্কে তার দাদা প্রয়াত ভিক্ষু লুয়াং তা আম কা।

সারানিয়া আরও জানান, লুয়াং তা, যিনি থাইল্যান্ডের নাখন রাচসিমা প্রদেশের এক গ্রামে বাস করতেন, ২০২২ সালের মার্চ মাসে ১০৯ বছর বয়সে মারা গেছেন।

"নিবন্ধ মতে তার বয়স ৯২ বলে উল্লেখ রয়েছে, কিন্তু তার মা দেরিতে জন্মনিবন্ধন করেছিলেন। প্রকৃতপক্ষে তার বয়স হয়েছিল ১০৯ বছর", বলেন সারানিয়া।

এই বৌদ্ধ ভিক্ষুর মৃত্যুর খবর স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে এখানে গত ২৪ মার্চ প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া এখানেও তার মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক জীবিত ব্যক্তি হিসেবে গিনেস রেকর্ডে স্বীকৃত হলেন ১১৮ বছর বয়সী ফরাসী নান লুসিল রেন্ডন যিনি সিস্টার আন্দ্রে নামে পরিচিত। তার আগে গত এপ্রিল মাস পর্যন্ত সবচেয়ে বয়স্ক জীবিত ব্যক্তি ছিলেন ১১৯ বছর বয়সী জাপানি নাগরিক কেইন তানাকা

গিনেস ওয়ার্ল্ড বুক অব রেকর্ড-এর রেকর্ড অনুসারে সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি ছিলেন ফরাসি নারী জেন লুইজ ক্যালমেন্ট, যিনি ১৯৯৭ সালে ১২২ বছর বয়সে মারা যান।