ভারতের স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের ছবি, হিজাব নিষিদ্ধের প্রতিবাদের নয়

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

কয়েকজন নারী ভারতের জাতীয় পতাকার রঙের স্কার্ফ পরছেন ও সেফলি তুলছেন এমন কয়েকটি ছবি ফেসবুকে ছড়িয়েছে। দাবি করা হচ্ছে, এই নারীরা গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য কর্নাটকে কয়েকটি স্কুলে হিজাব নিষিদ্ধের প্রতিবাদ হিসেবে ভারতের পতাকা-রঙের হিজাব পরেছেন। কিন্তু দাবিটি সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে ছবিগুলো ২০১৭ সালের পরে বিভিন্ন সময়ে ভারতের স্বাধীনতা দিবসের উদযাপনের সময় তোলা।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি ফেসবুকে এখানে ছবিগুলো পোস্ট করে বাংলায় ক্যাপশন লেখা হয়েছে: "স্কুল কলেজে হিজাব পরা যাবেনা। তাই মেয়েরা জাতীয় পতাকা দিয়ে হিজাব বানিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে উপস্থিত হয়েছে। কর্নাটকের মেয়েদের এমন অভূতপূর্ব প্রতিবাদ।"


২০২১ সালের ডিসেম্বরে ভাতের কর্নাটক রাজ্যে কয়েকটি স্কুল ক্লাসরুমে মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরিধান নিষিদ্ধ করার পর ভারতজুড়ে এর প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে।

এর জেরে হিন্দু ধর্মাবলম্বী তরুণরা নিজেদের ধর্মীয় প্রতীক হিসেবে গেরুয়া রঙের চাদর পরে প্রতিবাদস্থলগুলোতে জড়ো হতে থাকে।

এই ইস্যুতে দেশটিতে হিন্দু এবং সংখ্যালঘু মুসলমানদের মধ্যে উত্তেজনা বাড়তে থাকলে এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে অস্থায়ীভাবে কর্নাটকের স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়।

ছবিগুলো একইরকম দাবি সহকারে ফেসবুকে এখানে এখানে পোস্ট করা হয়েছে।

কিন্তু দাবিটি অসত্য।

কীওয়ার্ড ও রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখা গেছে, ভাইরাল ছবি দুটি ২০১৭ এবং ২০১৯ সালে মুম্বাইয়ের আঞ্জুমান-ই ইসলাম কলেজে স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের খবরের সাথে প্রকাশিত হয়েছে; যা কর্নাটকে হিজাব সংক্রান্ত প্রতিবাদের কয়েক বছর আগের ঘটনা।

প্রথম ছবিটি ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর দ্য হিন্দু পত্রিকার "২০১৯ সালে ইনস্টাগ্রামে দ্য হিন্দু কর্তৃক প্রকাশিত সবচেয়ে পছন্দীয় ছবিগুলো" শিরোনামের প্রতিবেদনে এখানে প্রকাশিত হয়েছে।

ছবিটির ক্যাপশনে লেখা ছিল: "স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পূর্বে মুম্বাইয়ের আঞ্জুমান-ই ইসলাম কলেজের শিক্ষার্থীরা তেরঙা স্কার্ফ পরছেন। ছবি বিবেক বেন্দ্র।"

দ্য হিন্দু এর ওয়েবসাইট থেকে স্ক্রিনশটটি ২০২২ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি নেয়া

নিচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্ট (বামে) এবং দ্য হিন্দুর এর প্রতিবেদনে প্রকাশিত ছবির (ডানে) তুলনামূলক একটি স্ক্রিনশট দেয়া হল:

একই ছবি ২০১৯ সালের ১৫ আগস্ট ভারতের স্বাধীনতা দিবসে দ্য হিন্দু এর ইনস্টাগ্রাম একাউন্টে এখানে পোস্ট করা হয়।

দ্বিতীয় ছবিটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়াটিভির ওয়েবসাইটে ২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে পাওয়া গেছে। সেখানে ছবিটির ক্যাপশনে লেখা হয়েছে: "মঙ্গলবার স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে মুম্বাইয়ে আঞ্জুমান-ই ইসলাম কলেজের কয়েক শিক্ষার্থী সেলফি তুলছেন। (ছবি সূত্র: পিটিআই)।"

পিটিআই এর পূর্ণরূপ হচ্ছে প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া, যা ভারতের দিল্লি ভিত্তিক একটি সংবাদ সংস্থা।

ক্যালেন্ডার দেখে নিশ্চিত হওয়া গেছে ২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট মঙ্গলবার ছিল।

নিচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্ট (বামে) এবং ইন্ডিয়াটিভির প্রতিবেদনের (ডানে) তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেয়া হল:

ওই সময়ে আরও কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনেও একইরকম ক্যাপশন সহকারে ছবিটি এখানে এখানে পিটিআই'র বরাতে প্রকাশিত হয়েছে।

এএফপির পক্ষ থেকে আঞ্জুমান-ই ইসলাম কলেজের অধ্যক্ষ শামা তারাপুরওয়ালার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিশ্চিত করেন ছবিগুলো তার কলেজে তোলা।

তিনি বলেছেন, "ছবিগুলো অবশ্যই আমাদের কলেজের। আমরা প্রতি বছরই এমন করে স্বাধীনতা দিবস পালন করে থাকি"।

ভারতে হিজাব আন্দোলন