Lionel Messi celebrates after scoring a goal during the Spanish League football match between FC Barcelona and RC Celta de Vigo at the Camp Nou stadium in Barcelona on May 16, 2021. (AFP / Pau Barrena)

শিশুদের হত্যার প্রতিবাদে ইসরায়েলের সাথে মেসির খেলা বাতিলের তথ্যটি ভিত্তিহীন

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

গত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে প্রায় দু'সপ্তাহ ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনীদের মধ্যে সহিংসতা চলে। এরই মধ্যে ফেসবুকে একটি খবর ছড়ায় যে, ২০১৮ সালে বিশ্বকাপ ফুটবল শুরুর আগে ইসরায়েলের সাথে আর্জেন্টিনার একটি প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ইসরায়েল কর্তৃক নিরপরাধ ফিলিস্তিনী শিশুদের হত্যার প্রতিবাদ হিসেবে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির হস্তক্ষেপে ম্যাচটি বাতিল হয়ে যায়। প্রকৃকপক্ষে এরকম তথ্যের পেছনে কোন সূত্রের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এ রকম কিছু ফেসবুক পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে। 

২৫৫ বার শেয়ার হওয়া গত ১৬ মে’র একটি ফেসবুক পোস্টে বলা হয়েছে- “২০১৮ বিশ্বকাপ এর প্রস্তুতি হিসাবে ইসরাঈল বনাম আর্জেন্টিনা প্রীতি ম্যাচ নির্ধারিত ছিল।জেরুজালেমে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো।কিন্তু মেসির সরাসরি হস্তক্ষেপে তা বাতিল হয়ে যায়। মেসি সেই ম্যাচ নিয়ে বলেন,"জাতিসংঘের শুভেচ্ছাদূত হিসাবে আমি তাদের বিপক্ষে কখনোই খেলতে পারি না যারা নির্দোষ শিশুদের হত্যা করে।আমাদের এই ম্যাচটি বাতিল করতে হয়েছে কারণ আমরা ফুটবলার বটে কিন্তু তার আগে মানুষ।”

উল্লেখ্য, একই দাবি সম্বলিত পোস্ট ২০১৮ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের সময় বিভিন্ন দেশে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়েছিল। সেই পোস্টগুলোতেই মূলত মেসিকে উদ্ধৃত করে এই বক্তব্য ছড়ানো হয়েছিল। সূত্র হিসেবে আর্জেন্টিনার স্পোর্টস চ্যানেল টিওয়াইসি এর কথা উল্লেখ করা হয়েছিল তখন। 

এর প্রেক্ষিতে এএফপি ফ্যাক্ট চেক ২০১৮ সালের ১২ জুন ইংরেজিতে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। দেখুন এখানে।

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, টিওয়াইসি এর স্পোর্টস রিপোর্টার মার্টিন আরেভালো ২০১৮ সালের ৬ জুন একটি টুইট করে জানান যে, তার চ্যানেলের সাথে মেসির কোন কথা হয়নি। 

আরেভালোর  টুইটটির মর্মার্থ হলো- “আপনারা যা লিখছেন তা সত্য নয়। মেসি এ ব্যাপারে মিডিয়া কিংবা টিওয়াইসি চ্যানেল কারো সাথেই কথা বলেন নি। সত্য লিখুন। বিশ্বকাপ ফুটবলের প্রস্তুতির এই সময়ে মেসি সংবাদমাধ্যমের সাথে কোন কথা বলছেন না।”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে বিশ্বকাপ শুরুর আগে ইসরায়েলের সাথে আর্জেন্টিনার প্রীতি ম্যাচটি হওয়ার কথা থাকলেও ফিলিস্তিনি ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি জিবরীল রাজুব লিওনেল মেসিকে ম্যাচটি না খেলার জন্য অনুরোধ করেন এবং তিনি খেললে মেসির নাম সম্বলিত জার্সি পোড়ানোর জন্য মেসি সমর্থকদের প্রতি আহবান জানান। 

বিতর্কের মুখে পরবর্তীতে ম্যাচটি বাতিল হয়ে যায় এবং এর প্রতিক্রিয়ায় জিবরীল রাজুব সংবাদ সম্মেলন করে আর্জেন্টাইন ফুটবল এসোসিয়েশনকে ধন্যবাদ জানান। কিন্তু এই ম্যাচ বাতিল বিষয়ে মেসি কখনো কোনো বক্তব্য দেননি, যেমনটা ফেসবুকে ছড়িয়েছে।

শিশুদের হত্যার প্রতিবাদে ইসরায়েলের সাথে মেসি কর্তৃক খেলা বাতিলের তথ্যটি ভিত্তিহীন

গত এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনীদের মধ্যে সহিংসতা চলছে। এরই মধ্যে ফেসবুকে একটি খবর ছড়িয়েছে যে, ২০১৮ সালে বিশ্বকাপ ফুটবল শুরুর আগে ইসরায়েলের সাথে আর্জেন্টিনার একটি প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ইসরায়েল কর্তৃক নিরপরাধ ফিলিস্তিনী শিশুদের হত্যার প্রতিবাদ হিসেবে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির হস্তক্ষেপে ম্যাচটি বাতিল হয়ে যায়। প্রকৃকপক্ষে এরকম তথ্যের পেছনে কোন সূত্রের সন্ধান পাওয়া যায়নি।