বিমানবন্দরের টার্মিনালের মেঝেতে প্রস্রাব করা তরুণটি কানাডিয়ান একজন অভিনেতা

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

বিমানবন্দরের টার্মিনালে অন্য মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে এক তরুণ প্রস্রাব করছেন এমন ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে তরুণটি হচ্ছেন বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। গত অক্টোবরে আরিয়ান খান মাদক উদ্ধারের এক ঘটনায় গ্রেফতার হওয়ার পর ভিডিওটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়ায়। কিন্তু ভিডিও সংক্রান্ত দাবিটি অসত্য। ২০১৩ সাল থেকে ভিডিওটি অনলাইনে রয়েছে এবং সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে প্রস্রাব করা তরুণকে 'টুয়াইলাইট' সিরিজের অভিনেতা ব্রন্সন পেলেটিয়ার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ভিডিও ফুটেজটি বাংলায় একটি ফেসবুক প্রোফাইল থেকে গত ৫ জানুয়ারি এখানে পোস্ট করা হয়েছে।

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা হয়েছে: "শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খানের অবস্থা দেখুন আমেরিকার বিমান বন্দরে।"

( Qadaruddin SHISHIR)

ভিডিওতে দেখা যায়, টার্মিনালে এক তরুণ প্রথমে অস্বাভাবিক অবস্থায় হাঁটছেন। এক ব্যক্তি তার সাথে কথা বলতে গেলে তিনি জনসম্মুখে মেঝেতেই প্রস্রাব করতে শুরু করেন।

গত অক্টোবরে একটি প্রমোদতরীতে বহুল আলোচিত মাদক উদ্ধারের ঘটনায় আটকের ৩ সপ্তাহ পর শাহরুহ খানের ছেলে আরিয়ান খান জামিন পান। 

ফুটেজটি একই দাবিসহকারে ফেসবুকে এখানেও পোস্ট করা হয়েছে।

কিন্তু দাবিটি অসত্য। ভিডিওতে দেখা যাওয়া ব্যক্তি শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান নন।

ভিডিওটি ২০১৩ সাল থেকে সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয়েছে। ওই সব প্রতিবেদনে ভিডিওর ব্যক্তিটিকে কানাডিয়ান অভিনেতা এবং 'টুয়াইলাইট' মুভি সিরিজের তারকা ব্রন্সন পেলেটিয়ার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

রিভার্স ইমেজ ও কীওয়ার্ড সার্চ করে একই ফুটেজ আমেরিকান ট্যাবলয়েড টিএমজেড এর ৩ জানুয়ারি, ২০১৩ সালের এই প্রতিবেদনে পাওয়া যায়।

'TWILIGHT' ACTOR PUNISHED For Peeing In Airport' শিরোনামে প্রতিবেদনে জানানো হয় বিমানবন্দরে জনসম্মুখে প্রস্রাব করার জন্য ব্রন্সন শাস্তির মুখোমুখি হয়েছেন।

"পেলেটিয়ার প্রথমে বিন্দনবন্দরে প্রস্রাব করার কথা অস্বীকার করেন। কিন্তু গত মাসে টিএমজেড একটি ভিডিও প্রকাশ করে যেখানে স্পষ্ট দেখা যায় যে, অভিনেতা সবার সামনে প্রস্রাব করছেন", বলা হয় রিপোর্টটিতে।

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ভিডিও এবং টিএমজেড এর প্রতিবেদনে দেয়া ভিডিওর তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেয়া হল:

ভাইরাল ভিডিও কীফ্রেইম ২০১৩ সালের ৩ জানুয়ারি ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের এই প্রতিবেদনেও প্রকাশিত হয়েছে।

এছাড়া আরিয়ান খান কর্তৃক বিমানবন্দরে জনসম্মুখে প্রস্রাব করার কোনো খবর বিশ্বাসযোগ্য কোনো সংবাদমাধ্যমে পাওয়া যায়নি।