আইভরি কোস্টের সাবেক ফুটবলার দ্রগবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণের তথ্যটি ভুয়া

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে কয়েক শতবার শেয়ার করা পোস্টে দাবি করা হয়েছে যে, আইভরি কোস্ট ও চেলসির সাবেক ফুটবলার দিদিয়ের দ্রগবা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। দ্রগবা দুই হাত তুলে প্রার্থনা করছেন এরকম একটি ছবি অনলাইনে ছড়িয়ে পড়ার পর বাংলাদেশসহ অন্যান্য মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে পোস্টগুলো ভাইরাল হয়। তবে নভেম্বরের ৭ তারিখ দ্রগবা তার টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে জানান, তিনি ধর্ম পরিবর্তন করেননি।

গত ৮ নভেম্বরের এই ফেসবুক পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “আলহামদুলিল্লাহ। ইসলাম ধর্ম গ্রহন করলেন আইবোরিয়ান লিজেন্ড দিদিয়ের দ্রগবা।”

পোস্টের সাথে সাবেক এই স্ট্রাইকারের দুটি ছবিও সংযুক্ত আছে। উপরের ছবিটিতে দেখা যায় দ্রগবা তার হাতের দিকে মাথা ঝুকিয়ে এক ব্যক্তির সাথে সোফায় বসে আছেন যা দেখলে সচরাচর ইসলামি রীতির প্রার্থনার মতো দেখায়।

অপর ছবিটিতে ২০১৫ সালে চেলসি ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ জেতার পর তার সতীর্থদের সাথে উল্লাসের দৃশ্য দেখা যায়।

ফেসবুকে বাংলা এখানেএখানে এবং ইংরেজিতে এখানেএখানে একইরকম দাবি সহকারে পোস্ট করা হয়।

তবে দ্রগবা নিজে জানিয়েছেন তিনি তার ধর্ম পরিবর্তন করেননি।

গত ৭ নভেম্বর তিনি তার টুইটারে লিখেন, “এই গল্পটি ভাইরাল হয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আমি আমার ধর্ম পরিবর্তন করিনি।”

“আমি কেবল আমার গ্রাম পরিদর্শনের সময় আমার মুসলিম ভাইদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করছিলাম। একটি ঐক্যবদ্ধ মুহুর্ত। সবার প্রতি ভালোবাসা ও আশীর্বাদ।”

২০২২ সালের মে মাসে ক্যাথলিক নিউজ এজেন্সির এক প্রতিবেদনে দ্রগবাকে 'ক্যাথলিক ফুটবল তারকা' বলে অভিহিত করা হয়।

২০১৪ সালের এক শুমারী অনুযায়ী, আইভরি কোস্টের ৩৩.৯ শতাংশ মানুষ খ্রিস্টান এবং ৪২.৯ শতাংশ মানুষ মুসলমান।

মূল ছবি

গুগল কীওয়ার্ড ও রিভার্স ইমেজ সার্চে ছবিটি আইভরি কোস্টের জাতীয় সংসদের ডেপুটি মেইটে আবুলায়ের গত ৫ নভেম্বরের একটি ফেসবুক পোস্টে পাওয়া যায়।

ছবিটিদে দ্রগবার পাশে তাকে দেখা যাচ্ছে।

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “গোহ এর জনগন, আপনাদের সন্তান আজ এখানে; নিয়াপ্রায়ো এর জনগন, আপনাদের সন্তান আজ এখানে; গুইবেরুয়া এর জনগন, আপনাদের সন্তান আজ এখানে।”

নীচে বিভ্রান্তিকর পোস্টের ছবি (বামে) ও মেইটে আবুলায়ের পোস্ট করা ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

মেইটে আবুলায়ের সাথে এএফপির পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান যে তার পোস্টে ছবিকে সামাজিক মাধ্যমে ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, “তিনি (দ্রগবা) আমি ও আমার পরিবারের সাথে ছিলেন। আমার বাবা-মা তাকে আশীর্বাদ করেন এবং সৌজন্যতামুলকভাবে তিনি তার দুই হাত তোলেন।”

গত ৫ নভেম্বরের স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ৪ নভেম্বর দ্রগবা মেইটে আবুলায়ে ও অন্যান্যদের সাথে তার নিজের গ্রাম পরিদর্শন করেন।

৭ নভেম্বর দ্রগবা নিজেও তার ফেসবুক পেজ হতে তার গ্রামে যাওয়ার ছবি পোস্ট করেন।