এটি স্ট্যাকড লেন্স দিয়ে তোলা একটি পিঁপড়ার ছবি

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে একটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে এটি মাইক্রোস্কোপে দেখা একটি পিঁপড়ার ছবি। দাবিটি বিভ্রান্তিকর; ছবিটির ফটোগ্রাফার এএফপিকে বলেন যে, এটি মাইক্রোস্কোপে নয় বরং ম্যাক্রোফটোগ্রাফি পদ্ধতি ব্যবহার করো তোলা ছবি।

ছবিটি গত ৯ এপ্রিল ফেসবুকে এখানে শেয়ার করা হয়।

( Qadaruddin SHISHIR)

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “ইলেক্ট্রন মাইক্রোস্কোপ-এ ধারণকৃত পিপীলিকার মুখের ছবি।"

ছবিটি একইরকম দাবিসহকারে ফেসবুকে এখানে এখানে শেয়ার করা হয়।

দাবিটি বিভ্রান্তিকর; ছবিটির ফটোগ্রাফার বলেন যে, মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করে তিনি এই ছবি তোলেন নি।

গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় এই ছবিটি ২০১৮ সালের ২২ জানুয়ারি ইন্দোনেশিয়া ভিত্তিক ফটোগ্রাফার আব্দুল লতিফের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট হতে পোস্ট করা হয়।

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও আব্দুল লতিফের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টের ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

লতিফ এএফপিকে বলেন, এই ছবি তোলার সময় তিনি কোন ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করেননি।

তিনি বলেন, “এই ছবিটি কোন ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ দিয়ে নয়, বরং মিররলেস ক্যামেরা দিয়ে তোলা। তবে এতে কাঙ্খিত বিবর্ধন পাওয়ার জন্য অতিরিক্ত একটি লেন্স ব্যবহার করেছি।”

“ছবিটি তুলতে আমি ক্যানন ইওএস এমথ্রি ক্যামেরার সাথে একটি ইএফ-এম ৫৫-২০০ এমএম লেন্স ও অতিরিক্ত রেনক্স ডিসিআর-২৫০ লেন্স ব্যবহার করেছি।”

“পিঁপড়াগুলো ছিল ১-১৫ মিলিমিটার লম্বা এবং মাথায় ২-৩ মিলিমিটার বড়।”

লতিফ জানান, ম্যাক্রোফটোগ্রাফিতে স্ট্যাক লেন্স অর্থাৎ অতিরিক্ত লেন্স ব্যবহার খুব প্রচলিত একটি পদ্ধতি।