ছবিটি সুদানের কোন মন্ত্রীর নয়, কেনিয়ার এক কৃশকায় ব্যক্তির

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে দুটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে ছবি দুটি সুদানের সাবেক এক প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর যিনি '২৪ বছর কারাগারে ছিলেন'। দাবিটি অসত্য; দুটি ছবির একটি হলো ২০১৯ সালে বিবিসির এক সাংবাদিকের নেয়া কেনিয়ার এক কৃশকায় ব্যক্তির; অপর ছবিতে সুদানের সাবেক এক সামরিক কর্মকর্তাকে দেখা যাচ্ছে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে এখানে ছবি দুটি শেয়ার করা হয়। 

পোস্টটির বাংলা ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “২৪ বছর পর মাটির নিচের গোপন কারাগারে খুঁজে পাওয়া গেল সুদানের সাবেক মন্ত্রীকে।”

“সুদানের স্বৈরশাসক ওমর আল-বশিরের অবৈধ শাসনের প্রতিবাদ করায় ২৪ বছর আগে ১৯৯৫ সালে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী কর্নেল ইব্রাহিম ছামসাদিনকে জেলে পাঠায়। ২০০৮ সালে সুদান সরকার বিমান দুর্ঘটনায় তিনি মারা যান বলে ঘোষনা করেন। কিন্তু ২৪ বছর পর অবৈধ শাসনের প্রতিবাদকারী ছামসাদিনকে জীবন্ত অবস্থায় সুদানের রাজধানী খার্তুমের একটি মসজিদের মাটির নিচের গোপন কারাগারে খুঁজে পাওয়া গেছে।”

( Mohammad MAZED)

ওমর আল বশির সুদানের সাবেক প্রেসিডেন্ট যিনি কর্তৃত্বপরায়ণতার সাথে প্রায় তিন দশক দেশটি শাসন করেন। ২০১৯ সালে ব্যাপক জনবিক্ষোভের মধ্য দিয়ে তার পতন হয়।

ছবিগুলো একইরকম দাবি সহকারে ফেসবুকে এখানে এখানে শেয়ার করা হয়। 

তবে দাবিটি অসত্য। 

ছবি দুটির মধ্যে একটি হলো ২০১৯ সালের মার্চে বিবিসির এক সাংবাদিকের তোলা কেনিয়ার এক কৃশকায় ব্যক্তির।

রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় দেখতে হাড্ডিসার এই ব্যক্তির ছবি ২০১৯ সালের ১৯ মার্চ বিবিসি সাংবাদিক রনক্লিফ ওদিত আরো দুটি ছবির সাথে টুইটারে পোস্ট করেন। 

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও রনক্লিফ ওদিতের টুইট করা ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

( Mohammad MAZED)

২০১৯ সালের ১৯ মার্চে বিবিসি'র একটি প্রতিবেদনেও এই ব্যক্তির ছবি ব্যবহার করা হয়।

অন্যদিকে সামরিক ইউনিফর্ম পরা ছবির ব্যক্তি হলেন সুদানের সামরিক কাউন্সিলের রাজনৈতিক কমিটির সাবেক প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল জয়নাল আবদিন। জেনারেল জয়নাল আবদিনের একইরকম একটি ছবি ২০১৯ সালের ১২ এপ্রিলের এএফপি'র আর্কাইভে পাওয়া যায় যেখানে তাকে সুদান টিভিতে কথা বলতে দেখা যায়। 

ছবিটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “সুদানের সাবেক প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরকে সেনাবাহিনী উতখাত করার পর ২০১৯ সালের ১২ এপ্রিল সামরিক কাউন্সিলের রাজনৈতিক কমিটির সাবেক প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল জয়নাল আবদিন রাজধানী খার্তুমে এক সংবাদ সম্মেলনে  কথা বলছেন।”

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও এএফপি'র ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো: