বাংলাদেশে 'এক মায়ের একসাথে সাতটি বাচ্চা জন্ম দেয়া'র বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে বেশকিছু পোস্টে সাতটি নবজাতক বাচ্চার কিছু ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে যে, বাংলাদেশের চট্টগ্রামে এক নারী একসাথে সাতটি বাচ্চার জন্ম দিয়েছেন। দাবিটি অসত্য; স্থানীয় হাসপাতালটির দায়িত্বরত কর্মকর্তা এএফপিকে জানান সাতজন নারী এই সাতটি বাচ্চার জন্ম দিয়েছেন। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমেও এ সংক্রান্ত খবর পাওয়া যায়।

গত ২৮ মে ফেসবুকে একটি পোস্টে এখানে ছবিগুলো শেয়ার করা হয় যার ক্যাপশনে লেখা রয়েছে: “চট্টগ্রাম হাটহাজারি এক মায়ের একসঙ্গে সাত সন্তানের জন্ম হয়েছে।”

“আলহামদুলিল্লাহ মা ও শিশুরা সবাই সুস্থ আছেন,সবাই দোয়া করবেন শিশুদের জন্য..!”

একইরকম ফেসবুক পোস্ট এখানে এখানে প্রায় দুইশ' বারের বেশি শেয়ার হয়েছে।

গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় এই ছবিগুলো গত ২৬ মে চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফেসবুক পেজ থেকে পোস্ট করা হয়। 

পোস্টটির ক্যাপশনের অংশবিশেষে লেখা রয়েছে, “গতকাল ২৫/০৫/২০২২ইং তারিখ সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একটি সিজারিয়ান সেকশন সম্পন্ন হয়। অপারেশন শেষে মা ও নবজাতক উভয়েই সুস্থ আছেন।”

“অপরদিকে গতকাল সন্ধ্যা ০৬ ঘটিকা থেকে আজ সকাল ০৬ ঘটিকা পর্যন্ত হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সর্বমোট ০৬টি নরমাল ডেলিভারি সম্পন্ন হয়।”

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ড. সুরজিত দত্ত গত ২৯ মে এএফপিকে বলেন, “এই সাতটি বাচ্চার মা সাতজন।”

তিনি বলেন, “যেহেতু প্রাকৃতিক ডেলিভারি এখন খুব কম, তাই ১২ ঘন্টায় ছয়টি প্রাকৃতিক ডেলিভারির ঘটনা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এসেছে।”

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও হাসপাতালের পোস্ট করা ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যম দৈনিক যুগান্তর গত ২৬ মে সাতটি বাচ্চার জন্ম নেওয়ার ঘটনাটির উপর একটি খবর প্রকাশ করে। দেখুন এখানে

বাংলাদেশি টেলিভিশন চ্যানেল নিউজ টুয়েন্টিফোর এর অনলাইনেও সাতটি বাচ্চার জন্ম নেওয়ার খবর প্রকাশিত হয়।