এটি প্রাচীন মিশরীয় একটি পোশাকের ছবি, নবী মুহাম্মদের জুব্বার নয়

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

ফেসবুকে একটি পোশাকের ছবি বহু হাজার বার শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে এটি ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে জন্মগ্রহণ করা নবী মুহাম্মদের ব্যবহৃত জুব্বা। কিন্তু দাবিটি অসত্য। ছবিটি ইতালির একটি বিশেষায়িত জাদুঘরে সরংক্ষিত প্রাচীন মিশরীয় পরিধেয় বস্তুর ছবির সাথে পুরোপুরি মিলে যায়। জাদুঘরের ওয়েবসাইটের তথ্য মতে, জুব্বাটি নবী মুহাম্মদের জন্মের কয়েক সহস্রাব্দ আগে মিশরে তৈরি এবং ব্যবহৃত হয়েছে।

গত ২৬ এপ্রিল ছবিটি ফেসবুকে এখানে পোস্ট করা হয়েছে এবং ২৭০০ এর বেশিবার শেয়ার হয়েছে।

বাংলা ভাষায় ক্যাপশনে লেখা হয়েছে: "বিশ্ব মানবতার মহান শিক্ষক মহানবী (সঃ) এর জোব্বা মোবারক।"

বাংলা হচ্ছে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ভাষা এবং প্রতিবেশি ভারতের কয়েকটি রাজ্যেও একই ভাষায় কথা বলা জনগোষ্ঠি রয়েছে।

একই দাবি সহকারে ছবিটি ফেসবুকে এখানে এবং এখানে পোস্ট করা হয়েছে।

কিন্তু দাবিটি অসত্য।

মিশরীয় সাংস্কৃতিক জাদুঘর

কীওয়ার্ড এবং রিভার্স ইমেজ সার্চ করে একইরকম ছবি ইতালির তুরিন শহরে অবস্থিত প্রাচীন মিশরীয় সংস্কৃতির ওপর বিশেষায়িত জাদুঘর মুজেও ইগিজিও এর ওয়েবসাইটে এখানে পাওয়া যায়।

জাদুঘরের ওয়েবসাইটে থাকা ছবির বর্ণনায় বলা হয়েছে এটি ভাজ করা পরিধেয় বস্তু যেটি খ্রিষ্টপূর্ব ২৪৩৫ সাল থেকে ২১১৮ সাল সময়ের মধ্য তৈরি ও ব্যবহৃত হয়েছে; যার কয়েক সহস্রাব্দ পরে মুহাম্মদের জন্ম হয়েছে।


ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক নবী মুহাম্মদ ৫৭০ খ্রিষ্টাব্দে বর্তমান সৌদি আরবের মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন এবং ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে মদিনায় মৃত্যুবরণ করেন।

নিচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি এবং মুজেও ইগিজিও এর ওয়েবসাইটের ছবির তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেয়া হল:

বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবিটি ২০২১ সালে ইউটিউবে আপলোড করা একটি ভিডিওর ফ্রেইমের সাথে হুবহু মিলে যায়। ওই ভিডিওর শিরোনাম হচ্ছে: "তুরিনের মিশরীয় জাদুঘর- দ্বিতীয় তলায় পায়ে হেঁটে ট্যুর"।

ভিডিওর স্ক্রিনে যুক্ত টেক্সটে পরিধেয় বস্তুটির সময়কাল হিসেবে ২৪৩৫-২১১৮ খ্রিষ্টপূর্বের তথ্য উল্লেখ রয়েছে।

নিচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি এবং ইউটিউব ভিডিওর ফ্রেইমের তুলনামূলক স্ক্রিনশট তুলে দেয়া হল: