ভিডিওটি ২০১৯ সালে একটি রুশ বিমান দুর্ঘটনার, আরব আমিরাতে বিমানে আগুনের নয়

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও ক্লিপ কয়েক হাজার বার শেয়ার হয়েছে এবং এতে দাবি করা হচ্ছে যে, এটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে আগুনের দৃশ্য। দাবিটি অসত্য; ভিডিও ক্লিপটি ২০১৯ সালে রাশিয়ার মস্কোতে রাশিয়ান একটি যাত্রীবাহী বিমানের জরুরী অবতরণের সময় আগুন লাগার খবরের সাথে পাওয়া যায়। চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত শারজা বিমানবন্দরে এমিরেটস এয়ারলাইনসের বিমান দুর্ঘটনার কোন খবর এএফপি খুঁজে পায়নি।

ভিডিও ক্লিপটি গত ১৫ এপ্রিল ফেসবুকে এখানে শেয়ার করা হয়।

( Mohammad MAZED)

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “পাকিস্তান হতে আসা 521 Emarat airlines শারজাহ এয়ারপোর্ট অবতরণ করার সময় লেনডিং গিয়ার বল্ক হয়ে যাওয়ার মাটিতে আচড়ে পড়ে, ২০৮ জন যাত্রীর মধ্যে ১৭৮ জন মৃত্যু বরণ করেন, ৩৮ জন প্রানে বাঁচলেও তাদের অবস্থা গুরুতর।”

চার মিনিট ১৪ সেকেন্ডের ভিডিওতে বিমানবন্দরে একটি প্লেন থেকে আগুনের শিখা ও ধোঁয়া উড়তে এবং যাত্রীদের বিমানটির জরুরী বহির্গমন পথ দিয়ে বের হতে দেখা যায়।

ভিডিওটি একইরকম দাবিসহকারে ফেসবুকে এখানে এখানে শেয়ার হয় যা কয়েক হাজারবার দেখা হয়েছে।

তবে দাবিটি অসত্য।

২০২২ সালের ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত শারজা বিমানবন্দরে এমিরেটস এয়ারলাইনসের বিমান দুর্ঘটনার কোন খবর এএফপি খুঁজে পায়নি।

কী-ফ্রেম দিয়ে রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় একইরকম একটি ভিডিও ২০২১ সালের ৮ নভেম্বর ইউটিউবে প্রকাশিত হয়।

ভিডিওটির বর্ণনায় লেখা রয়েছে, “২০১৯ সালের ৫ মে মস্কোর শেরেমেতেভো বিমানবন্দরে এরোফ্লটের একটি উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় ৪১ জন নিহত হন।”

“এরোফ্লট সুখোই সুপারজেট ১০০ উড়োজাহাজটি যখন উত্তরের মার্নমানস্ক শহরে যাচ্ছিল তখন পাইলট কারিগরি ত্রুটির কথা জানান এবং ফিরে আসেন।”

“জরুরী অবতরণের সময় বিমানটিতে আগুন ধরে যায়।”

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ভিডিও (বামে) ও ইউটিউবে প্রকাশিত ভিডিওর (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

ভিডিওটি নিবিড়ভাবে দেখলে সেখানে বিমানটিতে এরোফ্লটের লোগো দেখতে পাওয়া যায়। নীচে দেওয়া হলো:

( Mohammad MAZED)

এএফপির প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৯ সালের মে মাসে মস্কোর ব্যস্ততম বিমানবন্দরে জরুরী অবতরণের সময় রাশিয়ান এরোফ্লটের একটি বিমানে আগুন লেগে গেলে তা ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয় এবং এতে অন্তত: ৪১ জন মৃত্যুবরণ করেন।

এএফপির এই গ্রাফিকে মস্কোর শেরেমেতেভো বিমানবন্দরে বিমানটির জরুরী অবতরণের শেষ মুহুর্তের একটি ধারণা দেয়া আছে।

ওই বছরের ৬ মে এএফপি ঘটনাটির আরেকটি ভিডিও ইউটিউবে প্রকাশ করে।