আকাশ থেকে নেয়া ভেনিসের একটি ছবিকে মিরর ইফেক্ট দিয়ে এডিট করে এই ছবি বানানো হয়েছে

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।
 

দৃশ্যত হৃদয়াকৃতির একটি শহরের ছবি ফেসবুকে বেশ কিছু পোস্টে শেয়ার করে সেটিকে ইতালির ভেনিসের ছবি বলে দাবি করা হচ্ছে। পোস্টগুলো বিভ্রান্তিকর; ভ্যালেন্টাইন ডে তথা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ভেনিসের একটি ছবিকে পাশাপাশি যুক্ত করে মিরর ইফেক্ট দিয়ে ছবিটি বানানো হয়।  

গত ৯ অক্টোবর ফেসবুকে এখানে ছবিটি শেয়ার করা হয়।

পোস্টটিতে হৃদয়াকৃতির একটি দ্বীপসদৃশ ছবি রয়েছে যার দুই দিকে একইরকম দৃশ্য। 

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ''ইতালির ভেনিসের একটি দৃশ্য! Just Amaizing।''

একই ছবি এ বছরের জুলাই থেকেও টুইটারে একইরকম ক্যাপশন দিয়ে ছড়ায়। ফেসবুকে এখানেএখানে একইরকম পোস্ট দেখা যায়।

তবে দাবিটি বিভ্রান্তিকর।

পার্শ্ব প্রতিবিম্ব ছবি

ছবিটির দিকে ভালোভাবে খেয়াল করলে দেখা যায় হৃদয়াকৃতির জায়গাটির দুই দিকের ভবন, সেতু এবং নৌযানগুলো দেখতে হুবহু একইরকম। 

রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় এই ছবিটি ২০২১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী 'লেনার্ট প্যাজেল ফটোগ্রাফি' নামক একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ফেসবুকে পোস্ট করা হয়। 

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ''ব্রেকিং নিউজ! বিজ্ঞানীরা আবিস্কার করেছেন যে প্যারিন ভালোবাসার শহর নয়, বরং ভেনিস। বৈজ্ঞানিক প্রমাণ দেখতে ক্লিক করুন। অনলাইনে পাওয়া সবকিছু বিশ্বাস করবেন না। ভালোবাসায় বিশ্বাস রাখুন। শুভ ভালোবাসা দিবস।''

বৈজ্ঞানিক প্রমাণ হিসেবে দেখানোর জন্য প্রথম ছবিকে মিরর ইফেক্ট দিয়ে অতঃপর দুটি ছবিকে পাশাপাশি রেখে 'হার্ট শেপ' তথা হৃদয়ের আকৃতি দেয়া হয়েছে এবং ভেনিসকে ভালোবাসার শহর হিসেবে দেখানো হয়েছে।

লেনার্ট প্যাজেল একই ছবিগুলো তার ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্টেও পোস্ট করেছেন। 

গুগল ম্যাপসের স্যাটেলাইট দৃশ্য ব্যবহার করে এএফপি নিশ্চিত হয়েছে যে, বিভ্রান্তিকর ছবিটিতে মূলত ইতালির ভেনিসের গ্র্যান্ড ক্যানালের অংশবিশেষ দেখানো হয়েছে। ছবিটির বাম পাশে নীচের দিকে ব্যাসিলিকা সান্তা মারিয়া ডেলা স্যালুটের অবস্থান দেখা যাচ্ছে।