হিজাব বিহীন এই নারীর ছবি চেক প্রজাতন্ত্রের একটি ম্যাগাজিনের বিজ্ঞাপন

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

বই হাতে হিজাব ছাড়া এক নারীর একটি ছবি ফেসকুকে বেশকিছু পোস্টে শেয়ার করে ছবিটিকে আফগান গ্রাফিতি শিল্পী শামসিয়া হাসানের শিল্পকর্ম বলে দাবি করা হচ্ছে। দাবিটি অসত্য; ছবিটি মূলত চেক প্রজাতন্ত্রের রিপোর্টার ম্যাগাজিনের ২০১৮ সালের একটি বিজ্ঞাপনের। হাসানি নিজেও এই ছবিটি তার শিল্পকর্মের নয় বলে টুইটারে জানিয়েছেন।

ছবিটি গত ১৬ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে এখানে পোস্ট করা হয়।

( Qadaruddin SHISHIR)

এতে মাথায় ওড়নাবিহীন এক নারীকে বোরকা পরিহিত একদল নারীর বিপরীতে একটি বই হাতে হাঁটতে দেখা যায়।

পোস্টটির বাংলা ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ''এই মর্মস্পর্শী ছবি, ৩৩ বছর বয়সী শামসিয়া হাসানি নামের একজন আফগান শিল্পীর কাজ, আফগান গ্রাফিতি শিল্পী এবং কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিকা, যদি আমরা এইটা শেয়ার করি, তাহলে আমরা তাকে এবং সমস্ত আফগান নারীদেরকে আওয়াজ হয়ে দাড়ব যারা জাহান্নামে বসবাস করছে।''

শামসিয়া হাসানি একজন আফগান গ্রাফিতি শিল্পী যিনি একইসাথে কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকও। তিনি প্রায়ই তার শিল্পকর্মে আফগান নারীদের তুলে ধরেন।

তালেবান গত আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করার পর দেশটিতে নারী অধিকার খর্ব করার খবর সংবাদমাধ্যমে আসে যাতে নারীদের কাজে যাওয়া ও ছাত্রীদের স্কুলে যাওয়ার উপর বিধিনিষেধ আরোপ করার কথাও এসেছে। এএফপির এ সংক্রান্ত খবর দেখুন এখানে

একই দাবিসহকারে ফেসবুকে এখানেএখানেও ছবিটি পোস্ট করা হয়।

ছবিটি ফেসবুকে ইন্দোনেশিয়ান, স্প্যানিশ, পর্তুগিজ এবং ফ্রেঞ্চ ভাষায়ও শেয়ার হয়।

তবে দাবিটি অসত্য।

গুগলে কীওয়ার্ড ও রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় ২০১৮ সালে বিজ্ঞাপনে আন্তর্জাতিক পুরস্কার ক্লিও অ্যাওয়ার্ডের ওয়েবসাইটে ছবিটি পোস্ট করা হয়।

মূল ছবিতে দেখা যায় এই নারীর হাতে থাকা বইটি চেক প্রজাতন্ত্র ভিত্তিক 'রিপোর্টার' ম্যাগাজিনের একটি কপি। অথচ বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টে বইটিতে লাল রংয়ের একটি প্রচ্ছদ দেখা যাচ্ছে।

''মৌলবাদকে চ্যালেঞ্জ করা'' শীর্ষক ছবিটি 'রিপোর্টার' ম্যাগাজিনের ''আপনার দৃষ্টিভঙ্গি বদল'' শিরোনামের একটি বিজ্ঞাপনী ক্যাম্পেইনের অংশ।

এই ক্যাম্পেইনে ''নব্য নাজীবাদকে চ্যালেঞ্জ করা'' ও ''যুদ্ধকে চ্যালেঞ্জ করা'' শীর্ষক আরো দুটি ছবি ছিল।

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও মূল ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

ছবিটির ফটোগ্রাফার পাভেল হেজনি এবং একজন ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর অ্যাটিলা মার্টিনস তাদের ওয়েবসাইটেও ছবিটি এখানেএখানে পোস্ট করেন।

অন্যদিকে আফগান শিল্পী শামসিয়া হাসানিও গত ১৪ সেপ্টেম্বর টুইট করে জানান যে এই ছবিটি তার কোন শিল্পকর্মের নয়।

আফগানিস্তান