এটি ২০০৮ সালে ইরাকে ক্ষতিগ্রস্ত একটি মার্কিন বিমানের নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণের দৃশ্য

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

আফগানিস্তানে তালেবানদের ক্ষমতা দখলের প্রেক্ষিতে ফেসবুকে বেশকিছু পোস্টে একটি জ্বলন্ত বিমানের ছবি শেয়ার করে এটিকে দেশটির ফারাহ প্রদেশে মার্কিন সামরিক বিমান বিধ্বস্তের ছবি বলে দাবি করা হচ্ছে। দাবিটি অসত্য; সম্প্রতি ফারাহ প্রদেশে কোন মার্কিন সামরিক বিমান বিধ্বস্ত হয়নি এবং ছবিটি ২০০৮ সালে ইরাকে একটি ক্ষতিগ্রস্ত মার্কিন সামরিক বিমানকে স্থানান্তরের সুবিধার্থে বিস্ফোরক ব্যবহার করে নিয়ন্ত্রিতভাবে বিচ্ছিন্নকরণের।

গত ২৮ আগস্ট ফেসবুকে এখানে ছবিটি শেয়ার করা হয়।

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ''সর্বশেষ সংবাদ: ফারাহ প্রদেশে একটি মার্কিন #C130 সামরিক বিমান আজ সন্ধ্যায় বিধ্বস্ত হয়েছে, এতে শত শত মানুষ ও সৈন্য নিহত ও আহত হয়েছে। বিমানটি কাবুল বিমানবন্দর থেকে কাতার যাচ্ছিল।''

ফারাহ প্রদেশটি আফগানিস্তানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত।

আগস্টে আফগানিস্তান থেকে ২০ বছরের মার্কিন সামরিক উপস্থিতি প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণার পর তালেবানরা দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিলে এর প্রভাবে অনেক আফগান তালেবান শাসন থেকে বাচতে দেশ ত্যাগ করছেন। এদের অনেকে মার্কিন বিমানে করে কাবুল ত্যাগ করেছেন।

ফেসবুকে এখানে , এখানে এখানে ছবিটি একই দাবিসহ শেয়ার করা হয়।

দাবিটি অসত্য।

গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চে ছবিটি স্টক ফটোগ্রাফি সংস্থা আলামি'র ওয়েবসাইটে পাওয়া যায় এবং সেখানে ছবিটি তোলার তারিখ হিসেবে ২০০৮ সালে ৭ জুলাই লেখা রয়েছে।

ছবির সাথে ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ''গত ৭ জুলাই ইরাকের শাতের বিমান ঘাটিতে মার্কিন নৌবাহিনীর ৪৪৭ এক্সপেডিশনারী সিভিল ইঞ্জিনিয়ার স্কোয়াড্রনের বিস্ফোরক অপসারণ দলের সদস্যরা একটি মি-১৩০ হারকিউলিস বিমানের পাখা বিচ্ছিন্ন করতে বিস্ফোরক ব্যবহার করেন। যাতে সহজে স্থানান্তর করা যায় এজন্য দলটির সদস্যরা নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরক ব্যবহার করে বিমানটির কাঠামো আলাদা করছেন। গত ২৭ জুন উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরপরই বিমানটি বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উত্তরে একটি মাঠে জরুরী অবতরণ করে।''

ছবিটি সার্জেন্ট জেফরে অ্যালেন এর সৌজন্যে আপলোড করা হয়েছে।

নীচে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টের ছবি (বামে) ও আলামি'তে প্রাপ্ত ছবির (ডানে) একটি তুলনামূলক স্ক্রিনশট দেওয়া হলো:

২০০৮ সালের ১১ জুলাই মার্কিন বিমান বাহিনীর ওয়েবসাইটেও ইরাকের শাতের বিমান ঘাটিতে বিমানটি নিয়ন্ত্রিত বিচ্ছিন্নকরণের সংবাদ ও ছবি প্রকাশিত হয়।

এখানেও ছবিগুলো সার্জেন্ট জেফরে অ্যালেন এর সৌজন্যে প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনের প্রথম দু'টি প্যারায় লেখা রয়েছে, ''বৈমানকিরা গত ৭ জুলাই বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উত্তর-পূর্বে একটি পরিত্যক্ত মাঠে একটি সি-১৩০ হারকিউলিস বিমানকে বিচ্ছিন করতে বিস্ফোরক ব্যবহার করেন।''

''গত ২৭ জুন চালক বিমানটিকে জরুরী অবতরণ করাতে বাধ্য হলে এর পর থেকে এটি সেখানে আছে। নিরাপত্তাজনিত কারণে স্থানান্তরের সুবিধার্থে বিমানটি বিচ্ছিন্ন করে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।''

আফগানিস্তান