সৌদি আরবে অবস্থিত এই পাথরের ছবিকে বিকৃতভাবে সামাজিক মাধ্যমে ছড়ানো হচ্ছে

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে একটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে যে, ছবিটি ১৪০০ বছর ধরে হাওয়ায় ভাসতে থাকা একটি পাথরের। দাবিটি অসত্য; পাথরটি হাওয়ার উপর ভাসমান নয়। গুগল ম্যাপ এবং অন্যান্য অনলাইন মাধ্যমে প্রাপ্ত ছবি থেকে দেখা যাচ্ছে সৌদি আরবে অবস্থিত এই পাথরটি মাটিতে রাখা।

গত ২৩ অক্টোবর ফেসবুকে এখানে ছবিটি শেয়ার করা হয়।

ছবির সাথে সংযুক্ত লেখা রয়েছে, "১৪০০ বছর ধরে এই পাথরটি হাওয়ার উপর ভেঁসে আছে! সুবহানআল্লাহ।"

একই দাবি সহকারে ফেসবুকে এখানেএখানেও ছবিটি শেয়ার করা হয়েছে।

তবে দাবিটি অসত্য।

এএফপি ফ্যাক্ট চেক এর মধ্যপ্রাচ্য টিম পাথরটির অবস্থান চিহ্নিত করেছে সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলের আল আহসা অঞ্চলের আল তুয়াইতির গ্রামে।

বহু মানুষ পাথরটির প্রকৃত ছবি ও ভিডিও অনলাইনে পোস্ট করেছেন যেখানে দেখা যায় পাথরটি ছোট স্তম্ভ সদৃশ ভিত্তির সাহায্যে ভূমির উপর দাঁড়িয়ে আছে।

( Qadaruddin SHISHIR)

ইউটিউবে পোস্ট করা আরবি ভাষার এই ভিডিওতে বিভিন্ন দিক থেকে পাথরটিকে দেখা যায় এবং দৃশ্যত সেটি ভূমির সাথে সংযুক্ত রয়েছে। ক্লিপটি দেখে পাথরটি যে বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টে উল্লেখিত পাথরই সেটিও পরিস্কারভাবে বোঝা যায় কারণ ভিডিওতে পাথরের পেছনের ভবনে বিশেষ ধরণের বর্গাকৃতির জানালা দেখতে পাওয়া যায় যা ফেসবুক পোস্টেও আছে।

বিভ্রান্তিকর ফেসবুক পোস্টে প্রকৃত ছবিটিকে এডিট করে ভূমির সাথে পাথরের সংযোগসাধনকারী অংশগুলোকে মুছে ফেলা হয়েছে।

আরেকটি ভিডিওতে আরবি ভাষায় বিশ্লেষণ করে দেখানো হয়েছে, কিভাবে ফটোশপ অথবা অন্যান্য ফটো এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করে বিভ্রান্তিকর ছবিটি তৈরি করা হয়েছে।

গুগল ম্যাপের মাধ্যমেও এএফপি ফ্যাক্ট চেক পাথরটিকে সৌদি আরবে অবস্থিত বলে সনাক্ত করেছে। যদিও ম্যাপে পাথরটির নাম "ভাসমান পাথর" দেয়া আছে তবে গুগল স্ট্রিট ভিউয়ে স্পষ্টভাবে দেখা যায়, পাথরটি ভূমির সাথে সংযুক্ত আছে।