চীনের ট্রাক দুর্ঘটনার ছবি হন্ডুরাসে 'মাছ বৃষ্টি'র খবরের সাথে ছড়ানো হচ্ছে

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

হন্ডুরাসের এক শহরে আকাশ থেকে 'মাছ বৃষ্টি' হয়- এমন খবরের সাথে একটি ছবি অনলাইনে ছড়িয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে, পাকা রাস্তার উপর অসংখ্য মাছ পড়ে আছে। ছবিটি ভুল প্রেক্ষিতে ছড়ানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে এটি চীনের গুইজু অঞ্চলে ২০১৫ সালে ঘটা একটি ছবি যেখানে দুর্ঘটনাক্রমে ট্রাকের দরজা ভেঙে তা থেকে অসংখ্য মাছ রাস্তা পড়েছিল।

গত ৯ অক্টোবর একটি ফেসবুক পোস্টে খবরের লিংক শেয়ার করে ক্যাপশন দেয়া হয়েছে: "প্রতিবছর আকাশ থেকে বৃষ্টির মত ঝরে পড়ে মাছ এই শহরে!"

( Mohammad MAZED)

পোস্টে শেয়ার করা প্রতিবেদনে শত শত মাছ রাস্তায় পড়ে থাকার দৃশ্য সম্বলিত একটি ছবি যুক্ত করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটিতে হন্ডুরাসের ইয়োরো শহরের একটি এলাকা সম্পর্কে লেখা হয়েছে যেখানে প্রচণ্ড বৃষ্টির পর মাঠে অনেক মাছ জমা হয়ে থাকে। স্থানীয়রা এই বিষয়টিকে সৃষ্টিকর্তার পক্ষ থেকে বিশেষ আশীর্বাদমূলক ঘটনা হিসেবে দেখে থাকেন।

একই ছবি ফেসবুকে এখানেএখানে শেয়ার করা হয়েছে।

কিন্তু ছবিটি ভুল প্রেক্ষিতে ছড়ানো হয়েছে।

রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায় ছবিটি ২০১৫ সালে চীনের গুইজু প্রদেশে এক দুর্ঘটনায় ট্রাক থেকে সড়কে বিপুল সংখ্যক মাছ ছিটকে পড়ার খবরের সাথে চীনা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। 

চীনের রাষ্ট্রীয় সিনহুয়া ২০১৫ সালের ১৭ মার্চ এক ছবিটির ক্যাপশনে লিখেছে: "গুইজু প্রদেশের কাইলি ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট জোন এলাকা অতিক্রম করার সময় ৬ দশমিক ৮ টন মাগুর মাছ বহন করা একটি বড় ট্রাকের দরজা দুর্ঘটনাক্রমে খোলে যাওয়ার পর রাস্তার ওপর মাছ ছড়িয়ে পড়ে এবং সাথে সাথে রাস্তাটি 'মাছের পুকুরে' পরিণত হয়।"

( Qadaruddin SHISHIR)

চীনের আরেকটি রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যম চায়না নিউজ একই রকম খবরের সাথে ছবিটি প্রকাশ করেছে।

সিসিটিভির একটি ভিডিও রিপোর্টেও এই দুর্ঘটনার ফুটেজ প্রচারিত হয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে দুর্ঘটনার পর পুলিশ ওই রাস্তার গাড়িগুলোকে অন্যদিকে সরিয়ে দিচ্ছে এবং ফায়ার ফাইটাররা পাম্প দিয়ে পানি ছেড়ে মাছগুলো একত্রিত করার চেষ্টা করছেন।

ভিডিওতে শোনা যায় রিপোর্টার বলছেন, "প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় পড়ে যাওয়া ৫ টনেরও বেশি মাছ আবারও ট্রাকে তোলা হয়েছে।"

হন্ডুরাসে 'মাছ বৃষ্টি'

হন্ডুরাসের ইয়োরো শহরের এবং আশপাশের স্থানীয়রা দাবি করেন তাদের অঞ্চলে বহু প্রজন্ম ধরে 'মাছ বৃষ্টি' হয়ে আসছে।

স্থানীয় এমন কিংবদন্তীর নানান ব্যাখ্যা রয়েছে। এ নিয়ে নিউইয়র্ক টাইমস একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ২০১৭ সালে। একটি তত্ত্ব অনুযায়ী, প্রচণ্ড বৃষ্টির সময় আশপাশের পাহাড়ি জলাশয় থেকে পানির সাথে মাছ ভেসে আসার পর পানি সরে গেলে জমিতে মাছগুলো আটকে যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, "এটা স্থানীয়রা বলেন, এটা প্রতিবছরই ঘটে, এক বা একাধিকবার। যখন ঝড় থেমে যায় তখন গ্রামবাসী ঝুড়ি নিয়ে চারণভূমির দিকে রওয়ানা হন যেখানে জমিতে রুপালি রংয়ের শতশত মাছ পড়ে থাকে।"

"কিছু স্থানীয় বাসিন্দা এই ধরনের ঘটনাকে অষ্টাদশ শতাব্দির মাঝামাঝি স্পেন থেকে আসা ক্যাথোলিক ধর্মগুরু ম্যানুয়েল ডি জিসাস সুবিরানার প্রার্থনার ফসল বলে মনে করে থাকেন। যিনি ইয়োরোবাসীর ক্ষুধা এবং অভাব দূর করার জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন। কিংবদন্তী মতে, তার প্রার্থনার পরপরই এই 'মাছ বৃষ্টি' শুরু হয়।

নিউইয়র্ক টাইমস এর প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে: "বাস্তবে কেউই আকাশ থেকে মাছ পড়তে দেখেনি। কিন্তু স্থানীয়রা বলছেন যেহেতু এত শক্তিশালী ঝড়ের সময় কেউ বাইরে বের হওয়ার সাহস করে না তাই কেউ মাছ বৃষ্টি দেখার সুযোগ পায় না।"