তালেবান নেতাদের এই ছবিটি আফগানিস্তানে নয়, বরং রাশিয়ার মস্কোয় তোলা

কপিরাইট এএফপি ২০১৭-২০২২। সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত।

অন্য তিন তালেবান সদস্যের সাথে দলটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আব্দুল গনী বারাদারের একটি ছবি ফেসবুকে শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে যে, সম্প্রতি তালেবানদের হাতে কাবুল অধিকৃত হওয়ার পর আব্দুল গনী বারাদারসহ অন্য নেতারা আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি প্রাসাদে প্রবেশের সময়কার ছবি এটি। দাবিটি অসত্য; ছবিটি এ বছরের শুরুর দিকে মস্কোয় একটি সম্মেলনের সময় তোলা হয়।

গত ১৫ আগস্ট ফেসবুকে এখানে ছবিটি পোস্ট করা হয়। 

পোস্টটির ক্যাপশনে লেখা ছিল: ''আলহামদুলিল্লাহ, ছুম্মা আলহামদুলিল্লাহ! তা-লে-বান নেতা মো*ল্লা আবদুল গণি বারা-দার আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি প্রাসাদে প্রবেশ করেছেন। তিনি এখন আশরাফ ঘানির সাথে আলোচনা করছেন।  ঘানি আগামী কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পদত্যাগ করবেন এবং বারা*দার আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট হবেন!''

ছবিটি একইরকম দাবি সহকারে টুইটার ও ইনস্টাগ্রামের মতো অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়েছে। এর প্রেক্ষিতে এএফপি ইংরেজিতে একটি ফ্যাক্ট চেক প্রতিবেদন করে। 

একই ছবি ফেসবুকে বাংলায় এখানে এখানে পোস্ট করা হয়েছে।

গত ১৫ আগস্ট তালেবান যোদ্ধারা আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের দখল নেয় এবং আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনী দেশত্যাগ করলে তারা রাষ্ট্রপতির বাসভবনে প্রবেশ করে। 

গত ১৬ আগস্ট কাবুলের রাস্তায় যানবাহনের উপর মেশিনগান স্থাপন করে এক তালেবান যোদ্ধার টহলের ছবি ( AFP / Wakil Kohsar)

কিন্তু বারাদার ও তার সহযোগীদের এই ছবিটি তালেবানদের কাবুল দখলের চার মাস আগে থেকে তথা ২০২১ এর মার্চ থেকে অনলাইনে পাওয়া যায়। 

গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চে রাশিয়ান অনলাইন সংবাদমাধ্যম দ্য মস্কো টাইমসের একটি প্রতিবেদনে এই ছবিটি পাওয়া যায়।

এর সূত্র ধরে ছবির মূল সংস্করণটি বার্তা সংস্থা এএফপির ফটো আর্কাইভে পাওয়া যায়। ২০২১ এর ১৮ মার্চ আলেকজান্ডার জামেলিয়ান ছবিটি তোলেন।

ছবিটির ক্যাপশনে লেখা আছে. ''আফগান সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে আয়োজিত সম্মেলনে যোগ দিতে তালেবানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আব্দুল গনী বারাদার (মাঝে) ও অন্যান্য সদস্য মস্কো এসে পৌছেছেন।'' 

( Qadaruddin SHISHIR)

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের আফগানিস্তান থেকে ১১ সেপ্টেম্বরের আগে আমেরিকান সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়ার মাসখানেকের মাথায় তালেবান সমগ্র আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়।